পুরোনো আদলে ফিরছে ‘বঙ্গবন্ধু’র আদি পৈতৃক বাড়ি

সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর আদি পৈতৃক বাড়িটি পুরোনো আদলে ফিরিয়ে আনার কাজ শুরু হয়েছে।

প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর প্রায় ১ মাস আগে এ কাজ শুরু করেছে। বাড়িটির দেয়াল থেকে পুরোনো পলেস্তারা সরিয়ে ফেলা হয়েছে। এখন নতুন করে পুরোনো আদলে পলেস্তারা করা হচ্ছে। প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের উপপরিচালক আমিরুজ্জামান পলাশ ও সহকারী প্রকৌশলী ফিরোজ আহমেদ কাজটি তত্ত্বাবধান করছেন।

প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের সহকারী প্রকৌশলী ফিরোজ আহমেদ জানিয়েছেন, প্রায় ৮ বছর আগে প্রত্নতত্ত্ব বিভাগ বাড়িটি সংস্কার করে। এতে বাড়িটির পুরোনো আদলে বেশ পরিবর্তন আসে। পরে বাড়িটি পুরোনো আদলে ফিরিয়ে নিতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রত্নতত্ত্ব বিভাগকে নির্দেশ দেওয়া হয়। এর পর প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের প্রকৌশলীরা টুঙ্গিপাড়া এসে এ বাড়ির পুরোনো ছবি ও ভবনের নির্মাণশৈলী দেখে পুরোনো আদলে ফিরিয়ে দিতে একাধিক নকশা প্রণয়ন করেন। এগুলো পাওয়ার পয়েন্টের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে দেখানো হয়। প্রধানমন্ত্রী ওই নকশার আদলে বাড়িটি সংস্কার করার অনুমতি দেন। সে মোতাবেক বাড়িটি পুরোনো আদলে ফিরিয়ে আনার নমুনা কাজ চলছে। এ নমুনা আবার প্রধানমন্ত্রীর কাছে উপস্থাপন করা হবে। সেটি দেখে অনুমোদন দিলেই চূড়ান্ত কাজ করা হবে।

টুঙ্গিপাড়ার শেখ বাড়ির শেখ বোরহান উদ্দিন জানান, প্রায় সাড়ে ৩শ’ বছর আগে বঙ্গবন্ধুর পূর্বপুরুষ জমিদার শেখ কুদরতউল্লা টুঙ্গিপাড়ায় এ বাড়িটি নির্মাণ করেন। এ বাড়ি তখন এ অঞ্চলের মধ্যে অনন্য স্থাপত্যশিল্প হিসেবে পরিগণিত হতো। এ অঞ্চলে আগত মানুষ বাড়িটির নির্মাণশৈলী দেখে মুগ্ধ হতো। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শৈশব থেকে শুরু করে জীবনের অনেক স্মৃতি জড়িয়ে রয়েছে এই বাড়ির সঙ্গে। দীর্ঘ দিন বাড়িটি জরাজীর্ণ অবস্থায় পড়ে ছিল। টুঙ্গিপাড়া গ্রামের সল্ফ্ভ্রান্ত শেখ পরিবারের ঐতিহ্যবাহী এ বাড়িটি দেখতে বাংলাদেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মানুষ আসেন। তারা বাড়িটি ঘুরে ঘুরে দেখেন। শেখ পরিবারের ইতিহাস-ঐতিহ্য সম্পর্কে জানতে পারেন। বাড়িটি পুরোনো আদলে ফিরে এলে আরও আকর্ষণীয় ও দর্শনীয় হবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

বাগেরহাট জেলার চিতলমারী উপজেলার হিজলী গ্রামের এক দর্শনার্থী রহমত আলী বলেন, বঙ্গবন্ধু মানেই বাংলাদেশ। তার পৈতৃক বাড়িটি সংস্কার করে পুরোনো আদলে ফিরিয়ে আনার কাজ শুরু হয়েছে। সাড়ে তিনশ’ বছরের পুরোনো এ বাড়ি আদি রূপে ফিরলে নতুন প্রজন্মের কাছে জাতির পিতার পরিবারের সমৃদ্ধ ইতিহাস ও ঐতিহ্যকে তুলে ধরবে।

আশা করছি, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষে এর কাজ শেষ হবে।

পূর্বপশ্চিমবিডি/ জিএম

Leave a Reply

%d bloggers like this: