পুতিন – রুহানী – এরদোগান : আসল খেলোয়াড় কে ?

পুতিন - রুহানী - এরদোগান : আসল খেলোয়াড় কে ?

আনোয়ারুল হক আনোয়ার : গত কয়েক বছর আফগান, ইরাক, সিরিয়া ও লিবিয়া সংকট নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষন করছি । উল্লেখিত ৪টি দেশের ঘটনাবলী বিশেষ করে উল্থান পতন সিআইএ’র সৃষ্টি । ওয়াশিংটনের অব্যাহত দাপট এক সময় মনে হয়েছিল তারা গোটা এশিয়া মহাদেশ গিলে ফেলবে । উপসাগরীয় যুদ্ব, ইরাক যুদ্ব, আফগানিস্থানে মার্কিন বাহিনীর প্রভাব, সিরিয় গৃহযুদ্ব এবং আফ্রিকার সমৃদ্বশালী দেশ লিবিয়াকে দোজখে পরিণত করাসহ সবকিছু ওয়াশিংটনের সূদূর প্রসার পরিকল্পনার অংশ বিশেষ । ৪টি দেশের জনজীবন নরকে পরিণত করার পরও পরাশক্তি রাশিয়া কিংবা চীনের প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি । কিন্তু আইএস যখন তুরস্ক, রাশিয়া, চীন ও ইরানের দোরগৌড়ায় পৌছে যায় – তখন তিনটি দেশের নিদ্রাভঙ্গ ঘটে । আগেই বলে রাখা ভাল – ইরাকে সাদ্দাম হোসেনের বিরুদ্বে মার্কিন নেতৃত্বাধীন মার্কিন সামরিক জোটের তান্ডবকালে প্রতিবেশী ইরান ছিল বেশ উৎফুল্ল । কারন ওয়াশিংটনের মদদে সাদ্দাম হোসেন এক তরফা ইরানে হামলা চালায় । সাদ্দাম পতন পরববর্তী ইরাকের শিয়া জনগোষ্ঠী রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় অসীন । পবিত্র ঈদুল আজহার দিন ভোরে সাদ্দামের ফাঁসি কার্যকর করে ইরাকী সরকার ।

আফগান ইস্যুতে রুশ জনগন ক্ষুব্দ । আফগান ভূখন্ডে সাবেক সৌভিয়েত বাহিনীর শোচনীয় পরাজয় রুশ জনগন সহজভাবে মেনে নিতে পারেনি । ন্যাটো সামরিক জোটের একমাত্র মুসলিম সদস্য দেশ তুরস্ক’কে বেশ সন্দেহের চোখে দেখে আসছিল মস্কো । রাশিয়ার উদ্দেশ্য তুরস্কে ন্যাটোর সামরিক সামবেশ ভ্লামিদির পুতিনকে আত্নপ্রত্যয়ী করে তোলে । ইরানের সাথে রাশিয়ার সম্পর্ক দীর্ঘদিনের – তবে ভূ-রাজনীতির মারপ্যাচে এখন উভয় দেশ আরো ঘনিষ্ট । এক সময় তুরস্ক ছিল পাশ্চাত্য ভাবধারার । তূর্কি জনগন পশ্চিমা জোয়ারে গা ভাসায় । রজব তাইয়্যেব এরদোগানের আর্বিভাবে পরিবেশ অনেকটা পাল্টেছে । পৌর মেয়র থেকে রাজনীতিতে সক্রিয় অংশগ্রহনের পাশাপাশি পশ্চিমা বিরোধীতা হাড়ে হাড়ে টের পান এরদোগান । শেষতক ২০১৭ এরাদোগান বিরোধী ব্যর্থ সামরিক অভ্যূল্থানের মাধ্যমে ওয়াশিংটনের স্বরুপ উদঘাটিত হয় । বর্তমানে ওয়াশিংটনসহ পশ্চিমাদের সাথে তুরস্কের সম্পর্ক ব্যারোমিটারে উঠানামা করছে । সিরিয়ায় কুর্দি বিরোধী অভিযানের মাধ্যমে এরদোগান পশ্চিমা বিরোধীতা জানান দিচ্ছে ।

সিরিয়ায় সাত বছর গৃহযুদ্ব অব্যাহত রয়েছে । এখন সেখানে ত্রি-মুখী লড়াই চলছে । কেউ সিরিয়া পন্থী, কেই ইরান পন্থী আবার কেউবা তুরস্ক পন্থী । পিওয়াইডি ও পিকেকে’র বিরুদ্বে অভিযান পরিচালনা করছে তুরস্ক । এদু’টি কুর্দি সংগঠনকে সহযোগীতা দিচ্ছে ওয়াশিংটন । এছাড়া পিওয়াইডি কুর্দি গ্রুপকে সহায়তা দিচ্ছে ইরান । সম্প্রতি পিওয়াইডি গেরিলারা তুরস্কের একটি বোমারু বিমান ভূপাতিত করে । অভিযোগ রয়েছে ইরান পিওয়াইডি’কে বিমান বিধ্বংসী ক্ষেপনাস্ত্র ব্যবস্থা সরবরাহ করে । তুরস্ক কর্তৃক সিরিয়া অভিযানে ইরান সতর্ক প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে । এছাড়া অভিযান সংক্ষিপ্ত করার জন্য আঙ্কারার প্রতি আহবান জানায় তেহরান । রাশিয়া ও চীন সামরিক অভিযানের বিষয়ে নীরবতা পালন করছে । তবে একাধিক সূত্রে জানা গেছে, ব্লামিদির পুতিনের সম্মতিতে এরদোগান পিওয়াইডি – পিকেকে বিরোধী সামরিক অভিযানের নির্দেশ দেন । তুর্কি ভূখন্ডে অবস্থানরত পিকেকে কুর্দি গেরিলা গ্রুপের সাথে সিরিয়ার কুর্দি গোষ্ঠীর ঐতিহাসিক বন্ধন রয়েছে । ফলে পিওয়াইডি – পিকেকে জোটবদ্ব হয়ে তুরস্কের উপর ভয়াবহ হামলার আশংকায় সিরিয়ায় তুর্কী অভিযান চলছে ।

মধ্যপ্রাচ্য ইস্যুতে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লামিদির পুতিন, ইরানের প্রেসিডেন্ট ড. হাসান রুহানী ও তুর্কী প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগানকে নিয়ে আলোচনা চলছে গোটা দুনিয়ায় । শেষতক কে হচ্ছেন আসল খোলোয়াড় ? ইরান কি সিরিয়া, ইরাক ও ইয়েমেনের সমন্বয়ে একটি বলয় গড়ে তুলতে চায় ? তুরস্কে কুর্দি সন্ত্রাসমুক্ত এবং সুন্নিদেশ নিয়ে একটি শক্তিশালী জোট গঠন কি এরদোগানের উদ্দেশ্য ? ব্লামিদির পুতিন কি মার্কিন সাম্রাজ্যবাদী শক্তি ধরাশায়ী করে বিশ্ব নেতৃত্বের দিকে অগ্রসর হচ্ছেন ? পাঠকরা বিষয়গুলো লক্ষ্য করুন, রুশ, ইরান ও তুরস্কের উদ্দেশ্য ভিন্ন হলেও এ তিনটি দেশের জনগন কিন্তু মার্কিন সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী । বিশেষ করে তুরস্কে মার্কিন বিরোধী জনমত জোরদার হচ্ছে । ইউক্রেন ইস্যুতে গোটা পশ্চিমা দুনিয়ার বিপরীতে অবস্থান নেন পুতিন । শুধু তাই নয় গনভোটের মাধ্যমে ক্রিমিয়াকে রাশিয়ার অর্ন্তভূক্ত করেন । পরবর্তীতে স্বল্প নোটিশে সিরিয়ায় আইএস বিরোধী অভিযানে সফলতা অর্জন করেন । এক কথায় ভ্লামিদির পুতিনকে গোটা দুনিয়ার একক খেলোয়াড় বলা চলে । চীন, তুরস্ক কিংবা ইরান কর্তৃক ওয়াশিংটনের বিপরীতে অবস্থান গ্রহন ভ্লামিদির পুতিনের গ্রিন সিগন্যালে হচ্ছে । ফলে আঞ্চলিক ও আন্তর্জাাতিক দাবা খেলায় রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লামিদির পুতিন একজন আসল পাকা খেলোয়াড় ।

লেখক : সিনিয়র রিপোর্টার এবং আন্তর্জাাতিক বিশ্লেষক

Facebook Comments