--------------------------------------------------------------------------------

চলে গেলেন বরেণ্য চলচ্চিত্রকার আমজাদ হোসেন

প্রখ্যাত চলচ্চিত্র পরিচালক ও অভিনেতা আমজাদ হোসেন আর নেই। শুক্রবার (১৪ ডিসেম্বর) বাংলাদেশ সময় দুপুর ২টা ৫৭ মিনিটে ব্যাংককের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে মারা যান তিনি (ইন্নালিল্লাহি… রাজিউন)।

খবরটি সমকাল অনলাইনকে নিশ্চিত করেছেন তার বড় ছেলে সাজ্জাদ হোসেন দোদুল। তিনি সমকাল অনলাইনকে বলেন, বাবা চলেন গেছেন আমাদের ছেড়ে। আজ দুপুর ২টা ৫৭ মিনিটে ডাক্তার নিশ্চিত করেছেন। আমি ব্যাংককে যাচ্ছি। সবাই আমার বাবার জন্য দোয়া করবেন।’

আমজাদ হোসেনের মৃতদেহ বাংলাদেশে নিয়ে আসার বিষয়ে জানতে চাইলে দোদুল বলেন, এখনো কিছু সিদ্ধান্ত হয়নি। কবে, কখন, কীভাবে নিয়ে আসা হবে তা সিদ্ধান্ত নিয়ে সবাইকে জানানো হবে।

ব্রেন স্ট্রোক করে গত ১৮ নভেম্বর সকালে তেজগাঁয়ের ইমপালস হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন বাংলা চলচিত্রের জনপ্রিয় ছবি ‘গোলাপী এখন ট্রেনে’র নির্মাতা আমজাদ হোসেন। হাসপাতালে ভর্তির পর থেকেই ছিলেন টানা লাইফ সাপোর্টে।

পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য প্রধানমন্ত্রীর সহায়তায় এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে ২৭ নভেম্বর দিবাগত রাতে নিয়ে যাওয়া হয় ব্যাংককের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে। সেখানে প্রায় ১৭ দিন চিকিৎসাধীন থাকার পর চির বিদায় নিয়ে চলে গেলেন এ কিংবদন্তি নির্মাতা।

আমজাদ হোসেনের উন্নত চিকিৎসার খরচ বাবদ ৪২ লাখ টাকা দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আমজাদ হোসেন অভিনীত প্রথম চলচ্চিত্র ‘তোমার আমার’। এরপর অভিনয় করেন ‘হারানো দিন’ ছবিতে।

পরিচালক হিসেবে তিনি নিজেকে এক অন্য মাত্রায় নিয়ে গিয়েছিলেন তিনি। ‘বাল্যবন্ধু’, ‘পিতাপুত্র’, ‘এই নিয়ে পৃথিবী’, ‘বাংলার মুখ’, ‘নয়নমণি’, ‘গোলাপী এখন ট্রেনে’, ‘সুন্দরী’, ‘কসাই’, ‘জন্ম থেকে জ্বলছি’, ‘দুই পয়সার আলতা’, ‘সখিনার যুদ্ধ’, ‘ভাত দে’, ‘হীরামতি’,‘প্রাণের মানুষ’,‘সুন্দরী বধূ’,‘কাল সকালে’, ‘গোলাপী এখন ঢাকায়’, ‘গোলাপী এখন বিলেতে’র মতো দর্শকনন্দিত চলচ্চিত্র উপহার দিয়েছেন আমজাদ হোসেন।

সূত্র; সমকাল

Facebook Comments